কে মারা যাবে তা আগাম বুঝতে পারেন রহস্যময়ী যুবতী!

0

তাঁর দাবি, তিনি মৃত্যুর গন্ধ পান! সব সময়ে নয়, কোনও কোনও বিশেষ মুহূর্তে। আর তখনই তিনি বুঝতে পারেন, কাছের কোনও ব্যক্তির মৃত্যু আসন্ন।

মৃত্যু জীবনের এমন এক প্রান্তিক স্টেশন, যার কোনও ফিরতি গাড়ি হয় না। কবে একটি জীবন চলতে চলতে সেই অন্তিম গন্তব্যে পৌঁছবে, তা কারও জানা নেই। আর তাই মৃত্যু এত রহস্যময়। কিন্তু এক ২৪ বছরের যুবতীর জীবনে সেই মৃত্যুই এসেছে অন্য এক আশ্চর্য রহস্য নিয়ে। তাঁর দাবি, তিনি মৃত্যুর গন্ধ পান! সব সময়ে নয়, কোনও কোনও বিশেষ মুহূর্তে। আর তখনই তিনি বুঝতে পারেন, কাছের কোনও ব্যক্তির মৃত্যু আসন্ন।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, অস্ট্রেলিয়াবাসী এই যুবতীর নাম আরি কালা। পেশায় একজন মনোবিদ। তাঁর দাবি, বারো বছর বয়সে প্রথম নিজের ভিতরে থাকা অতীন্দ্রিয় এই শক্তির সন্ধান পান তিনি। এক আত্মীয়ের মৃত্যুশয্যায় তিনি আচমকাই আশ্চর্য এক গন্ধ পান। কিন্তু বালিকা আরি লক্ষ করেন, আর কেউ ওই গন্ধ পাচ্ছে না। কিছু দিন পরেই ওই আত্মীয় মারা যান।

এর পর আরি লক্ষ করেন, কোনও বিশেষ ব্যক্তির কাছে গেলে তিনি ওই গন্ধ পাচ্ছেন। এবং সেই ব্যক্তি কয়েকদিনের মধ্যেই মারা যাচ্ছেন! নিজের এই ষষ্ঠেন্দ্রিয়র অলৌকিক ক্ষমতা তখনই বুঝতে পেরে যান আরি। এর পর এক দশকেরও বেশি সময় কেটে গিয়েছে। এই আশ্চর্য ক্ষমতায় বহু মৃত্যুকে সম্যক অনুধাবন করেছেন আরি। মৃ্ত্যুর আগাম সন্ধান পাওয়ার আশ্চর্য ক্ষমতা নিয়ে বহু ছবি বা সাহিত্যকর্ম হয়েছে। কিন্তু আরি কোনও সিনেমা বা উপন্যাসের চরিত্র নন। তাঁর দাবি, তাঁর এই অভিজ্ঞতা একেবারেই বাস্তব। আর সেই অভিজ্ঞতা নিয়েই সুন্দরী এক যুবতী হয়েও তিনি যেন বাস করেন এক রহস্যের অন্তরমহলে।

নিজের অসহায়তাও খুব ভাল করে জানেন আরি। তিনি জেনে গিয়েছেন, মৃত্যুর আগাম আভাস পেলেও তাকে আটকানোর কোনও ক্ষমতা তাঁর নেই। মনোবিদের কাজ করার আগে একটি সংস্থায় সেক্রেটারির কাজ করতেন তিনি। কিন্তু অচিরেই বুঝতে পারেন এই কাজ তাঁর জন্য নয়। তার পরই তিনি পেশা পরিবর্তন করেন। নিজের মনের ওই রহস্যজনক আচরণকে সামনে রেখেই অন্যের মনের সমস্যার সমাধান করেন এই যুবতী। যিনি জানেন, আগে থেকে বুঝতে পারা যাক আর না পারা যাক— সকলের কাছেই মৃত্যু এক অবশ্যম্ভাবী গন্তব্য। নিয়তিকে অতিক্রম করার ক্ষমতা যে কারও নেই, তা স্পষ্ট করে জানিয়েছেন আরি।

Leave a Reply

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here