আশা কি করতে পারি ধর্ষণ ঘটবে না আর?-তসলিমা নাসরিন

0
আশা কি করতে পারি ধর্ষণ ঘটবে না আর?-তসলিমা নাসরিন

প্রেসনিউজ২৪ডটকমঃ বাংলাদেশে এখন ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড। আশা কি করতে পারি ধর্ষণ ঘটবে না আর? ভারতেও ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড, কিন্তু ধর্ষণ তো ঘটেই চলেছে। কারাবাস, যাবজ্জীবন, মৃত্যুদন্ডের ভয়ও কেন পুরুষকে ধর্ষণ থেকে বিরত রাখে না? যেসব অঞ্চলে অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড, সেসব অঞ্চলেও অপরাধপ্রবণতা নেহাত কম নয়।

মানুষ ঝুঁকি নিয়েই অপরাধ করতে নামে। তারা কি আসলে খুব সাহসী পুরুষ? মোটেও তারা সাহসী পুরুষ নয়। মৃত্যুদন্ডের ঝুঁকি নিয়ে দেশের জন্য, জনগণের ভালোর জন্য, সমতার জন্য যুগে যুগে বিপ্লবীরা অপরাধ করেন। অপশাসনের অবসান হলে সেসব অপরাধকে বিপ্লব হিসেবে সম্মান করা হয়। কিন্তু মৃত্যুদন্ডের ঝুঁকি নিয়ে ধর্ষণ করা, যৌন হেনস্তা করা, ব্যক্তিস্বার্থে কাউকে হত্যা করা- এসব বিপ্লব নয়, এসব জঘন্যতম কুৎসিততম অপরাধ। এই অপরাধ কেন সংঘটিত হয়? এই কারণটি বের করে সেই কারণটি যদি নির্মূল করা যায়, তবেই হবে ধর্ষণের সমাপ্তি। যৌন হেনস্তা, ধর্ষণ, নারী নির্যাতনের মূল কারণ যদি নির্মূল না হয়, আমার আশঙ্কা ধর্ষণ চলতেই থাকবে।

বাংলাদেশের সমাজে দুই ধরনের পরিবর্তন ঘটেছে। একটি পরিবর্তন ধর্মান্ধতা, যেটি ভালো নয়। আরেকটি পরিবর্তন ভালো, অন্যায় অত্যাচার আর নির্যাতনের প্রতিবাদ করতে নারী পুরুষ সকলের পথে নামা। আটের দশকের মাঝামাঝি সময় ধর্ষণের বিরুদ্ধে যেসব প্রবন্ধ বা নিবন্ধ লিখেছি, তার জন্য অনেকে আমার সমালোচনা করেছে, বলেছে এসব বিষয় জনগণের সামনে না আনাই ভালো। এমন কী ’৯২ সালে ‘নিমন্ত্রণ’ নামে আমার ধর্ষণবিরোধী উপন্যাসিকাটি প্রকাশ হওয়ার পর দুনিয়ার তাবৎ অশ্লীল বাণী আমার ওপর বর্ষিত হয়েছে। আমি নাকি পর্নোগ্রাফি লিখেছি। কিছু মহিলা অবশ্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেছিলেন, তাঁরা তাঁর কিশোরী কন্যাদের বইটি পড়তে বলেছেন, তারা যেন সচেতন হয়।

যেন কেউ ভুরু পল্লবে ডাক দিলেই চলে না যায় অন্তরালে। আজ নিমন্ত্রণ বইটি পড়ে কেউ কিন্তু পর্নোগ্রাফি বলবে না, কারণ নিমন্ত্রণের ঘটনা সমাজের বাস্তব চিত্র এবং এটি প্রকাশ করা উচিত। আগে মানুষ মনে করতো অশোভন এবং অশ্লীল কান্ড যা সমাজে ঘটছে তা লুকিয়ে রাখাই বুদ্ধিমানের কাজ। সে কারণে ধর্ষণের শিকার হয়ে মেয়েরা মুখ লুকিয়ে রাখতো। কাউকে বলতো না কী ঘটেছে। তা ছাড়া মানুষ মনে করতো, ধর্ষণের ব্যাপার বড় জোর খবরের কাগজে যেতে পারে, কিন্তু সাহিত্যের বিষয় এটি হতে পারে না। তিরিশ চল্লিশ বছর আগে ধর্ষণের বিরুদ্ধে পথে নামাটা অস্বাভাবিক ছিল, এখন স্বাভাবিক। এক সময় ধর্ষণ শব্দটাই উচ্চারণ করতে আলাদা সাহসের দরকার হতো, এখন হয় না। এটি নিশ্চয়ই উত্তরণ।

যারা ধর্ষণ করতে চায়, তারা যদি এখন ধর্ষণ না করে, তাহলে কী কারণে করবে না? এর খুব সহজ উত্তর, মৃত্যুদন্ডের ভয়ে। কিন্তু ধর্ষণের ইচ্ছেটা তো তাদের রয়েই যাবে। সেটি তো কোথাও যাদুবলে উবে যাচ্ছে না? তবে? আমরা জানি পুরুষের ‘নারীবিদ্বেষী মানসিকতা’ ধর্ষণ ঘটায়, ধর্ষণ ঘটায় টক্সিক মাস্কুলিনিটি বা ‘বিষাক্ত পৌরুষ’। নারীবিদ্বেষী মানসিকতার বা ওই বিষাক্ত পৌরুষের কিন্তু কোনও পরিবর্তন হচ্ছে না। সেটি হওয়াই কি সবচেয়ে জরুরি নয়? সেটি হওয়াতে গেলে যা যা উদ্যোগ নিতে হবে, তা কি রাষ্ট্র নেবে? সমাজের সর্বস্তরে যেন এই পরিবর্তনটি হয়, সেই দায়িত্ব সরকারি এবং বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানকে নিতেই হবে।

স্কুল কলেজের পাঠ্যসূচিতে সব রকম নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে, নারীবিদ্বেষী মানসিকতা এবং ক্ষতিকর পৌরুষ সম্পর্কেও সচেতন করতে হবে শিক্ষার্থীদের। মূলত পুরুষতন্ত্রের যে অপশিক্ষাটা মানুষের মস্তিষ্কে ঢুকে গেছে- ‘পুরুষ মহান, পুরুষ প্রভু, নারী ভোগের বস্তু, নারী দাসি’, সেই অপশিক্ষাটা মস্তিষ্ক থেকে না বের করে দিতে পারলে কারও পক্ষে ‘নারীবিদ্বেষী’ মানসিকতা বদলানো সম্ভব নয়। বাড়ির শিক্ষারও গুরুত্ব অনেক। ঘরে পিতা এবং মাতাকে কী ভূমিকায় দেখে একটি শিশু বড় হয়, সেটি নিশ্চয়ই গুরুত্বপূর্ণ।

পিতা এবং মাতাকে প্রভু এবং দাসির ভূমিকায় দেখলে শিশুর মস্তিষ্কে পুরুষ এবং নারীর এই ভূমিকাটিই স্থায়ী অবস্থান নেয়, এটিকেই আদর্শ ভূমিকা বলে বিবেচনা করে। পিতা যদি মাতাকে অত্যাচার করতে অভ্যস্ত হয়, তবে শিশু নারীকে অত্যাচারের যোগ্য বলেই বিচার করে।একবিংশ শতাব্দীতেও ঘরে ঘরে কি নারীরা সমানাধিকার পেতে পারে না? পেলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম নারীকে দাসি বা সন্তান উৎপাদনের যন্ত্র বলে বিচার করবে না। নারীদের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা কি থাকতে পারে না? থাকলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম নারীকে পরনির্ভর বা পরাধীন বলে বিচার করবে না।

মৃত্যুদন্ডের আইন সব সমস্যার সমাধান দেবে না। ধর্ষণ এবং নারী নির্যাতনের পিছনে হাজারো কারণ আছে। সেই কারণগুলো দূর করতে হবে, তা না হলে নারী-নির্যাতন, যৌন হেনস্তা ইত্যাদি ঘটতেই থাকবে। কিছু কিছু পোশাক না পরার, সন্ধ্যের পর বাড়ি থেকে বের না হওয়ার, রাতের উৎসবে না যাওয়ার, নির্জন রাস্তায় হাঁটাচলা না করার, ক্লাবে-হোটেলে না ঢোকার যে পরামর্শ দেওয়া হয় মেয়েদের, সেটি মেয়েদের না দিয়ে বরং যারা দোষ করে, অর্থাৎ পুরুষদের দেওয়া উচিত। মেয়েদের উপস্থিতি দেশের সর্বত্র, রাস্তাঘাটে, অলিতে গলিতে, অফিস আদালতে, ইস্কুল কলেজে, মাঠে ময়দানে, ক্যাফে রেস্তোরাঁয়, ক্ষেতে খামারে, জলে স্থলে অন্তরীক্ষে আরও হওয়া দরকার। শেকল ছিঁড়ে মেয়েরা যত বেরোবে, বাইরের দুনিয়াটা তত মেয়েদের হবে। অন্দরমহলে বাস করে বাইরের পৃথিবীকে নিরাপদ করা যায় না।

অভিনেতা অনন্ত জলিল ধর্ষণের জন্য ধর্ষককে নয়, মেয়েদের দোষ দিয়েছেন। অনন্ত জলিলের মতটাই অধিকাংশ মানুষের মত। অনন্ত জলিল চাপে পড়ে ক্ষমা চেয়েছেন। ওই ক্ষমা কি তিনি অন্তর থেকে চেয়েছেন? তাঁর স্বতঃস্ফূর্ত প্রথম বক্তব্যই সম্ভবত তাঁর অন্তরের কথা, যা তিনি বিশ্বাস করেন। স্রোতের অনুকূলেই যেতে হয় বলে গিয়েছেন। অভিনেতা মোশাররফ করিমকে ঠিক এর উলটো কথা বলার জন্য ক্ষমা চাইতে হয়েছিল। উনি বলেছিলেন পোশাকের কারণে ধর্ষণ ঘটে না। ওই মন্তব্য করার পর মোশাররফ করিমকেও চাপের মুখে ক্ষমা চাইতে হয়েছিল। হ্যাঁ, সত্য বলার জন্য তিনি ক্ষমা চেয়েছিলেন। সংশোধন করে মোশাররফ করিম যা বলেছিলেন তা হলো পোশাকের কারণেই ধর্ষণ ঘটে। ঘটনাটি কবে ঘটেছিল? খুব দীর্ঘকাল আগে নয়। এই কদিনে দেশের কি এত পরিবর্তন ঘটে গেল যে অনন্ত জলিলকে ক্ষমা চাইতে হয় মেয়েদের পোশাকের কারণে ধর্ষণ ঘটে বলার জন্য? না, দেশ আগের মতো আছে। দেশের কিছু বদলায়নি।

আমার মনে হয় যারা ধর্ষককে ফাঁসি দেওয়া, ধর্ষকের ধর্ষদন্ড কর্তন করা, ধর্ষককে ক্রসফায়ারে মেরে ফেলা ইত্যাদির জন্য চিৎকার করছে, তাদের অধিকাংশই খুব গোপনে বিশ্বাস করে ধর্ষণের কারণ মেয়েরাই। মেয়েরা যদি সংযত হয়ে চলাফেরা করতো, যদি ঠিকঠাক পোশাক পরতো, রাতে একা না বেরোতো, তাহলে ধর্ষণ হতো না। বাংলাদেশের বড় বড় অনেক বুদ্ধিজীবীই বিশ্বাস করেন ধর্ষণে। বিশ্বাস করেন মেয়েদের না মানে হ্যাঁ, বিশ্বাস করেন একটু জোর না করলে যৌনতায় আনন্দ নেই। সাধারণ মানুষ ব্যতিক্রম হলে কতটাই বা হবে!

আমি মৃত্যুদন্ডের বিরুদ্ধে। যে অপরাধই যে লোকই করুক না কেন, কারও মৃত্যুদন্ড হোক চাই না। মৃত্যুদন্ড ছাড়া আরও তো শাস্তির ব্যবস্থা আছে দুনিয়ায়। সবচেয়ে ভালো হয়, মানুষকে যদি শিক্ষিত আর সচেতন করে গড়ে তোলা যায়। অপরাধ যে কারণে হচ্ছে, সেই কারণটাকে যদি নির্মূল করা যায়। এই কাজটি কেউ করতে চায় না। সবাই সোজা পথটি ধরতে চায়। সোজা পথটি হলো, অপরাধীকে মেরে ফেল। চোখের বদলে চোখ নিয়ে নাও। খুনের বদলে খুন। এর নাম কিন্তু বিচার নয়, এর নাম প্রতিশোধ। এটি করে জনগণকে ধোঁকা দেওয়া যায়। জনগণ ভাবে অপরাধ দমনে সরকার বিরাট এক ভূমিকা নিয়েছে।

অপরাধীর জেল হলে এমন তো হতে পারে, সে ভালো মানুষ হয়ে জেল থেকে একদিন বেরোবে। নিরপরাধকেও তো কত মৃত্যুদন্ড দেওয়া হয়। জেলে থাকাকালীন যদি প্রমাণ হয় মানুষটি নিরপরাধ, তখন অন্তত ভুল শোধরানোর সুযোগ পাওয়া যায়। ১৪০টি দেশ মৃত্যুদন্ড বিলুপ্ত করেছে। বাকি দেশগুলোও করবে। সবচেয়ে কম অপরাধ কোন দেশে হয়? যে দেশগুলোয় মৃত্যুদন্ড নেই। সবচেয়ে বেশি অপরাধ? যেসব দেশে মৃত্যুদন্ডের আইন আছে। অপরাধীকে মৃত্যুদন্ড দিলে কি অপরাধ করা থেকে বিরত থাকে মানুষ? প্রমাণ পাওয়া গেছে, একেবারেই না।

খুনিকে মৃত্যুদন্ড দিলে কি মানুষ আর খুন করবে না? ঠিক করবে। কিন্তু সমাজের মানুষকে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুললে খুনখারাবির সংখ্যাটা কমে যায়। একই রকম ধর্ষককে মৃত্যুদন্ড দিলেও পুরুষেরা ধর্ষণ বন্ধ করবে না। পুরুষ তখন ধর্ষণ বন্ধ করবে যখন মেয়েদের ধর্ষণের বস্তু হিসেবে তারা আর দেখবে না। অলরেডি এই নষ্ট নারীবিদ্বেষী পুরুষতান্ত্রিক সমাজ তাদের শিখিয়ে ফেলেছে যে মেয়েরা ধর্ষণের বস্তু, এই শেখাটা মাথা থেকে দূর করতে হবে। ব্যস, তাহলেই ধর্ষণ বন্ধ হবে। নতুন করে কাউকে আর নতুন কিছু শেখাতে হবে না, শেখাতে হবে না যে মেয়েরাও মানুষ, তাদের শ্রদ্ধা কর।

লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here