প্রবাসী বাংলাদেশীদের অনুপ্রেরণার ব্যক্তিত্ব এস. আলম রাজীব করোনায় আক্রান্ত

0
প্রবাসী বাংলাদেশীদের অনুপ্রেরণার ব্যক্তিত্ব এস. আলম রাজীব করোনায় আক্রান্ত

প্রেসনিউজ২৪ডটকমঃ নিজস্ব প্রতিনিধিঃ দেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম সাইবার রাজনীতির সাংগঠনিক রূপকার, বহিঃবিশ্ব বিএনপি’র প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক, নারায়ণগঞ্জ এর সাবেক ছাত্রদল নেতা, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাইবার ইউজার দল- কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি জনাব এস. আলম রাজীব সম্প্রতি মহামারী করনো ভাইরাস (কোভিড-১৯) এ আক্রান্ত হয়ে অসুস্থাবস্থায় আইসোলেসনে রয়েছেন, তার আশু রোগমুক্তি কামনায় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাইবার ইউজার দলের জেলা, উপজেলা, মহানগর/শহর/থানা সহ অন্যান্য বিভিন্ন ইউনিট কমিটি এবং প্রবাসী কমিটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমজুড়ে দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা, সেই সাথে বিশেষ দোয়ার আয়োজন, কোরআন শরীফ বিতরণ, মাদ্রাসা ও এতিমখানায় কোরাআন খতম এর আয়োজন করছেন তার আশু রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনা করে।

উল্লেখ্য যে, অপরাজনীতির স্বীকার হয়ে এস. আলম রাজীব দীর্ঘ প্রায় এক যুগ যাবৎ প্রবাসে অবস্থান করছেন। তিনি প্রথমে নিউজিল্যান্ডের ওয়েলিংটনে এবং পরবর্তীতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে জীবন যাপন করছিলেন। সেখানে বাংলাদেশী প্রবাসীদের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলের লক্ষ্যে মানবতার কল্যানের মহান ব্রত নিয়ে দেশটির আইনশৃঙ্খলা ও প্রশাসনিক সংস্থাসমূহের যৌথ উদ্যেগে গঠিত ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি এন্ড ক্রাইসিস ডিপার্টমেন্ট এর অধীন কম্বেট এগেইন্সট কোভিড-১৯ এর সদস্য হিসেবে ন্যাশনাল স্ক্র‍্যানিং সেন্টারে এই মহামারীর শুরু থেকেই নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করছিলেন। কিন্তু গত সপ্তাহে তার ব্যক্তিগত ফেইসবুক প্রোফাইলের স্ট্যাটাস থেকে প্রথম এবং পরবর্তীতে তার পারবিবারিক সূত্রে নিশ্চিত হওয়া যায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তার অসুস্থতার সংবাদ।

দেশের নারায়ণগঞ্জ জেলার স্বনামধণ্য ও রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করা একজন কৃতি সন্তান এস. আলম রাজীব। মধ্যপ্রাচ্যের সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত প্রবাসী এই বাংলাদেশী সেই দেশের কোনো জনপ্রতিনিধি নয়, না সেখানের জনগণের সাথে অঙ্গীকারবদ্ধ তাদের নিরাপত্তা বা সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে, কোনো স্থানীয় রাজনৈতিক দলের সদস্যও নয়, যদিও সেটি রাজতান্ত্রিক দেশ।

কিংবা আরব আমিরাত তার স্বদেশ বা জন্মভূমিও নয়, কর্মসংস্থানের বা আর্থিক সুবিধার উদ্দ্যেশ্যেও নয়, শুধুমাত্র মানবতার কল্যাণ বা মনুষ্যবোধ এর তাগিদেই গত ২৬শে মে তার জন্মদিনে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন জন্মকে স্বার্থক, সফল ও অর্থবহ করার প্রয়াসে দেশটির সরকারী ও প্রশাসনিক সংস্থা- দা সুপ্রিম কাউন্সিল ফর ন্যাশনাল সিকিউরিটি এর ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি এন্ড ডিসেস্টর ম্যানেজমেন্ট অথোরিটি ও ন্যাশনাল সুপ্রিম সিকিউরিটি ফোর্স (এনএসএফএফ) এবং আবুধাবি হেলথ অথোরিটি (সেহা)’ সমন্বয়ে গঠিত ‘ন্যাশনাল সার্ভে সেন্টার্স টু এক্সামিনি কোভিড-১৯’ এ স্বেচ্ছায় চুক্তি স্বাক্ষর করেন কোভিড-১৯ স্ক্রিনিং ট্যাস্ট ও কোরেন্টাইন এর রেজিস্ট্রেশন, অপারেশনাল ম্যানেজমেন্ট ও এডমিন টিমের সাথে যুক্ত হয়ে পরবর্তী সরকারী ঘোষনা না আসা পর্যন্ত মানবতার সেবায় প্রথম সারিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে।

দেশটির অন্যতম বানিজ্যিক কেন্দ্র, বন্দর ও পর্যটন স্ট্যাট খ্যাত দুবাই এর সবচেয়ে অভিজাত আবাসিক এলাকা দুবাই ম্যারিনা ডিস্ট্রিক্টে নিজের আরামদায়ক বাসস্থান, রিয়েল স্ট্যাট, পি আর ও সার্ভিস, প্রোজেক্ট ম্যানেজমেন্ট, গাড়ির ব্যবসাসহ বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান সমূহ, বিলাসবহুল একাধিক গাড়ি ও বাল্যকাল থেকেই শৌখিন এবং বিলাসী জীবনযাপনে অভ্যস্ত রাজীবকে কোনো কিছুই ধরে রাখতে পারেনি মানবতার কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করা থেকে। তিনি প্রমাণ করলেন আবারো যে মানব ধর্ম হলো জাত ধর্ম বর্ণ ও ভৌগোলিক অবস্থানের সীমারেখা সহ সকল কিছুর ঊর্ধ্বে, শুধু প্রয়োজন মানবতার দৃষ্টিকোণ থেকে নিজের বিবেককে জাগ্রত করে মানুষ মানুষের জন্য স্লোগানকে বাস্তব করার সদিচ্ছা।

যেখানে বহিঃবিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে কতিপয় বাংলাদেশী প্রবাসীদের বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকান্ডের কারনে ভিসা প্রক্রিয়া বন্ধসহ সম্মানজনক কর্মসংস্থান দূর্লভ প্রাপ্তি, কর্মস্থানে পদোন্নতি সহ নানান বৈষম্যের খবর আমরা শুনে থাকি এবং স্থানীয় ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রে জাতিগতভাবে বাংলাদেশীদের প্রতি বিদ্যমান ঢালাও নেতিবাচক মনোভাবের প্রমাণও আমরা প্রায়ই দেখি; সেখানে দেশটির কমিউনিটির সুরক্ষা ও নিরাপত্তায় এস. আলম রাজীব এর স্বেচ্ছায় এগিয়ে যাওয়া এবং দেশটির প্রশাসনিক কর্মকান্ডে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিজেকে নিয়োজিত করা, সকল বাংলাদেশী প্রবাসীদের জন্য অনুকরণীয় ও অনুপ্রেরণার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে, যা স্থানীয়ভাবে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বৃদ্ধিতে ও বাংলাদেশী প্রবাসীদের প্রতি ইতিবাচক ধারণা সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে মন্তব্য করেছেন সংযুক্ত আরব আমিরাত সহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত বাংলাদেশী প্রবাসীরা।

গত বছর ২৬শে মে তার জন্মদিনে উক্ত মহৎ কর্মে নিজেকে নিয়োজিত করার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে নির্দেশনানুযায়ী কোভিড স্ক্রিনিং ট্যাস্ট করান এবং সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, ইন্সটাগ্রাম, টুইটারে তার ব্যক্তিগত প্রোফাইল ও অফিসিয়াল ফ্যান পেইজে আপলোড দেন এবং সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন, এর পরপরই শুরু হয়ে যায় তার আত্মীয় স্বজন, রাজনৈতিক সহযোগী, বন্ধু বান্ধব এবং অসংখ্য শুভাকাঙ্ক্ষী সহ সকলেই তাকে উৎসাহিত করে অভিনন্দন ও শুভ কামনা জানিয়ে মন্তব্য প্রদান করা।

নারায়ণগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ- চাষাড়া ইউনিট কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোঃ নুর আলম মিয়ার মেঝ ছেলে এস. আলম রাজীব গত ২০১০ সালে প্রতিহিংসার অপরাজনীতির স্বীকার হয়ে পাড়ি জমান প্রথম নিউজিল্যান্ডের ওয়েলিংটনে এবং এরপর কিছুদিন ভারত তারপর চলে যান সংযুক্ত আরব আমিরাতে। সেখানে তিনি আবুধাবি ন্যাশনাল হোটেলস এর ট্রান্সপোর্ট উইং আল ঘাজাল ট্রান্সপোর্ট এর রেন্টাল লিজিং এন্ড মাস ট্রানজিট ডিভিশিনের কোওর্ডিনেটর, বহুজাতিক ওয়েল্ফীল্ড সলিউশন কোম্পানি স্বনামধন্য ‘স্লাম্বার্জার’ এর ট্রান্সপোর্টেশন ডিভিশিনের অপারেশন ইন চার্জ, ন্যাশনাল লাইব্রেরী, আবুধাবি পর্যটক অধিদপ্তর সহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের ট্রান্সপোর্ট অপারেশনে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

গত ২০১৮ সালে যুক্ত হন আবুধাবি পুলিশের বিশেষ ইনিসিয়েটিভ ‘উই আর অল পুলিশ’ টিমে গ্রাজ্যুয়েট কমিউনিটি পুলিশ অফিসার হিসাবে। এছাড়াও সে আবুধাবি আন্তর্জাতিক বই মেলার আয়োজক টিমের সদস্য হিসেবে ২০১৭ সালে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৭ সালে সর্বপ্রথম বাংলাদেশী হিসেবে আল ঘাজাল ট্রান্সপোর্ট থেকে বেস্ট কোওর্ডিনেটর (বেস্ট এসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার) হিসেবে এওয়ার্ড অর্জন করেন ক্লায়েন্টের সর্বোচ্চ সন্তুষ্টি ও সুপারিশের ভিত্তিতে।

এস. আলম রাজীব আরব আমিরাতের বিভিন্ন সরকারী ও সামাজিক সংস্থা-সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে ফার্স্ট গ্লোবাল চ্যালেঞ্জ-দুবাই ২০১৯, ফর্মুলা ওয়ান এতিহাদ এয়ারওয়েজ আবুধাবি গ্রান্ডপ্রিক্স ২০১৯, আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স কম্পিটিশন্স সিরিজ ২০২০-এর মতো সম্মানজনক বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও জাতীয় কর্মসূচিগুলোতে অংশ নিয়ে আয়োজক ও এডমিন টিমে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

‘দুবাই এক্সপো ২০২০’এ মনোনিত হন নিরাপত্তা টিমের সদস্য হিসেবে, কোভিড-১৯ এর মহামারির কারনে গত বছর স্থগিত হয়ে এই বছর আগামী ২০শে অক্টোবর বিশ্বের সর্ব্বৃহৎ ও গুরুত্বপূর্ণ মেগা এই ইভেন্টটি শুরুর পুনঃতারিখ ঘোষণা করা হয়। দেশটির কমিউনিটি ডেভলপমেন্ট মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক সংস্থা ভলান্টিয়ার.এ.ই, দুবাই এক্সপো ২০২০ হাউজ অব ভলান্টিয়ার, এমিরেটস রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, এমিরেটস ফাউন্ডেশন, অটোমোবাইল এন্ড ট্যুরিং ক্লাব অব ইউ.এ.ই, মার্শালস, তাকাতফ, সানিদ, থিংক সাইন্স, কাফাত সংস্থার সাথেও সে মেম্বার বা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে প্রত্যক্ষভাবে সম্পৃক্ত।

এমিরেটস চ্যারিটি ফাউন্ডেশন ও খলিফা ফাউন্ডেশনেরও সে একজন পৃষ্ঠপোষক। মহামারী চলাকালীন নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কোভিড স্ক্রিনিং ট্যাস্ট সেন্টারে তার কাজের মূল্যায়ন স্বরূপ দুবাইর ক্রাউন প্রিন্স শেখ হামদান বিন মোহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুম তাঁর ভাই সম্বোধন করে প্রশংসাপত্র ও জাতীয়ভাবে মর্যাদাপূর্ণ ‘শুকরান’ বেইজ প্রদান করেন তাকে এবং সম্প্রতি আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন যায়েদ আল নাহিয়ানের নির্দেশনায় গঠিত বিশেষ দপ্তর ফ্রন্টলাইন হিরো’জ অফিস এ এস. আলম রাজীব কে জাতীয়ভাবে ফ্রন্ট লাইন হিরো হিসেবে আখ্যায়িত করে তার নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে এবং দেশের সরকারী কর্মকর্তাদের জন্য প্রদত্ত ন্যাশনাল সোশ্যাল সিকিউরিটি ফান্ড এর ফাযা ইনিশিয়েটিভ  এ তাকেও সমমর্যাদা প্রদান এবং আরো অনেক নানান সরকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদর্শনের অংশ হিসেবে ব্যাপকভাবে সুযোগসুবিধা প্রদানের উদ্যাগ নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, গত ২০১০ সালে তিনি দেশ ত্যাগ করার পরও নিজ সমর্থিত দলের জন্য কাজ করতে, বিএনপির বিভিন্ন কর্মসূচিতে যেনো দলের প্রবাসে অবস্থানরত নেতা-কর্মীরাও প্রত্যক্ষ প্রচারনার মাধ্যমে বা যার যার এলাকায় গণসংযোগের মাধ্যমে ভূমিকা রাখতে পারে এবং রাজনীতির প্রতি বর্তমান প্রজন্মের নেতিবাচক মনোভাবকে পরিবর্তন করে প্রকৃত শিক্ষিত ও মেধাবীদেরকে আগামীর দেশগড়ার কারিগর হিসেবে রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট করতে এবং রাজনীতিতে ডিজিটালায়নের বাস্তবিক উদ্যেগ হিসেবে দেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম সাইবার ভিত্তিক রাজনৈতিক দল এবং বিএনপি’র প্রযুক্তি নির্ভর সহযোগী শক্তি ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাইবার ইউজার দল (বিএনসিইউপি)’ প্রতিষ্ঠা করেন।

যা পরবর্তীতে দেশের ৪৪টি জেলা, উপজেলা, মহানগর, ইউনিয়ন ও প্রবাসী ১১টি দেশে স্থানীয় বিএনপি’র সভাপতি বা সাধারন সম্পাদকের লিখিত সুপারিশের ভিত্তিতে কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। উক্ত কমিটির নেতৃবৃন্দ এক যোগে অনলাইন এর পাশাপাশি দলীয় গঠনমূলক ও শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে নিজস্ব ব্যানারে অংশগ্রহণ, স্থানীয় নির্বাচনে রাজপথের পাশাপাশি সর্বপ্রথম ই-ক্যাম্পেইনিং বা প্রচারাভিযান, আর্তমানবতার সেবায় নিজেদের উদ্যেগে বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কর্মসূচি আয়োজন করছে সংগঠনের ব্যানারে বিভিন্ন সময়ে এস. আলম রাজীবের নির্দেশনায়। বিশ্বব্যাপী চলমান মহামারী কোভিড-১৯ দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে তার নির্দেশে ফরিদপুর জেলা, মৌলভীবাজার জেলা কমিটি সহ আরো বেশ কয়েকটি জেলা-উপজেলা কমিটি ও এর নেতৃবৃন্দ ব্যক্তিগত উদ্যেগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কর্মসূচী পালন করেছে। বিগত সময়ে বিএনপি’র ত্রাণ তহবিলেও ব্যক্তিগত উদ্যেগে সে নগদ অর্থ প্রদান করেন বন্যার্তদের সহায়তায়।

ছাত্র জীবন থেকেই এস. আলম রাজীব ছিলেন সাংগঠনিক ও সামাজিক কর্মকান্ড চর্চায় লিপ্ত। ২০০২ সালে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় ঐক্যজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর যখন নারায়ণগঞ্জস্থ ঐতিহাসিক সরঃকারী তোলারাম কলেজ এর ছাত্র সংসদ বিলুপ্ত ছিল, তখন এস. আলম রাজীব শিক্ষার্থীদের কল্যাণে গঠিত অরাজনৈতিক সমাজসেবামূলক ছাত্র সংগঠন ‘নব প্রজন্ম ছাত্র সংসদ’ প্রতিষ্ঠা করেন এবং সকলের মতামতের প্রেক্ষিতে সভাপতি মনোনীত হয়ে ৯৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করে তোলারাম কলেজ ছাত্র সংসদের পরবর্তী ভিপি মাশুকুল ইসলাম রাজীবকে উপদেষ্টা করে কলেজের বিভিন্ন কার্যক্রমে নেতৃত্ব দেন এবং ধীরে ধীরে পুরো জেলা জুড়েই এর কার্যক্রম ও নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে পড়ে ততকালীন তরুণ, ছাত্র সমাজে এবং রাজনৈতিক অঙ্গনে ব্যাপকভাবে সাড়া তুলেন।

পারিবারিক ভাবেও এস. আলম রাজীবের জন্ম রাজনৈতিক পরিবারে। তার আত্মীয় স্বজনদের থেকে জানা যায়, তার পরিবারের বিভিন্ন সদস্যরা বিভিন্ন সময় রাজনীতির বিভিন্ন শীর্ষ পর্যায়ে নেতৃত্ব প্রদান করা স্বত্ত্বেও সে তার রাজনৈতিক জীবনের অভিষেক থেকেই স্বপরিচয়ে পরিচিত হতে পছন্দ করতেন। তার পরিবারের সদস্যদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা হলেন, বিএনপি’র সাবেক  মহাসচিব ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী ব্যারিস্টার মরহুম আব্দুস সালাম তালুকদার তার নানা, সাবেক অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ব্রিঃ জেঃ (অবঃ) করনো আক্রান্ত হয়ে সদ্য প্রয়াত আনোয়ারুল কবির তালুকদার তার মামা, বিএনপির চেয়ারপার্সন এর উপদেষ্টা এডঃ তৈমুর আলম খন্দকার তার উকিল শশুর, বাবা মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোঃ নূরুল আলম সাবেক কেন্দ্রীয় শ্রমিক দল নেতা ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারন সম্পাদক এবং বিএনপির স্বাধীনতা সূবর্ণ জয়ন্তি মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা কমিটির কেন্দ্রীয় সদস্য, চাচাতো ভাই মরহুম মোস্তাফিজুল ইসলাম মামুন এক সময়ের আলোচিত তুখোড় ছাত্রনেতা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক ছিলেন, চাচা এস. আলম সাইদুল নারায়ণগঞ্জ এর সাবেক মহানগর যুবদল নেতা ও গ্রীস বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি, বড় ভাই এস. আলম নিপু গ্রীস বিএনপির একজন প্রথম সারির নেতা, ছোট ভাই এস. আলম ইসরাৎ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সাইবার ইউজার দলের সহ-সাধারন সম্পাদক।

বর্তমানে মানব সেবায় নিজেকে স্বেচ্ছায় নিয়োজিত করার সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে এস. আলম রাজীব এর সাথে কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার আগে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, কোভিড-১৯ যেমন একটি অভিশপ্ত মহামারী, তেমনিই আমাদের নিজেদের চিন্তাধারাকে, জীবন বিধানকে পরিবর্তন করতে, বিবেকবোধকে জাগ্রত করতে, সহানুভূতিশীল ও সেবামূলক মনোভাবে ধাবিত করতে ইতিবাচক বার্তা বহনকারী। চলমান এই মহামারীতে আবারো প্রমাণিত যে আশরাফুল মাখলুকাত হয়েও আমরা এতো ক্ষুদ্রতর একটি ভাইরাসের কাছে কতোটা অসহায়।

নাম, অর্থ, প্রভাব, জনপ্রিয়তা, ক্ষমতা, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব সব কিছুই তুচ্ছ এর আক্রমণের কাছে। এসব কিছু চিন্তা ও গভীরভাবে উপলব্ধি করেই নিজের জন্ম ও জীবনকে কিছুটা সার্থক ও অর্থবহ করতে সর্বোচ্চ সামর্থ্য দিয়ে কিছু করার প্রয়াসেই এই কাজে আমার যুক্ত হওয়া এবং আমি আশা করবো আমার মাধ্যমে আমার আশে পাশের কিংবা পরিচিত অনেকেই এতে অনুপ্রাণিত হয়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করবেন চলমান এই বিশ্বব্যাপী দূর্যোগের সময়ে, যাতে শীঘ্রই আমরা ফিরে যেতে পারি সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদপুষ্ট সুন্দর এই পৃথিবীতে আমাদের স্বাভাবিক দৈনন্দিন জীবনযাত্রায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here