ফাইজারের টিকা জরুরি অনুমোদনের জন্য আবেদন

0
ফাইজারের টিকা জরুরি অনুমোদনের জন্য আবেদন

প্রেসনিউজ২৪ডটকমঃ করোনার চিকিৎসায় টিকা ব্যবহারে জরুরি অনুমোদন চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এফডিএ) কাছে আবেদন পত্র জমা দিয়েছে ফাইজার ও বায়োএনটেক। শুক্রবার (২০ নভেম্বর) তারা এফডিএ কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের আবেদন পত্র জমা দেয়।

শুক্রবার এক ভিডিও বার্তায় ফাইজারের প্রধান নির্বাহী আলবার্ট বোরলা একে ‘ঐতিহাসিক দিন’ উল্লেখ করে বলেন অত্যন্ত গর্ব এবং আনন্দের সঙ্গে…কিছু স্বস্তির সঙ্গেও আপনাদের জানাচ্ছি, আমাদের কোভিড-১৯ টিকার জরুরি অনুমোদনের আবেদন এখন এফডিএ কর্তৃপক্ষে হাতে। তবে কবে নাগাদ এর অনুমোদন পাওয়া যাবে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। যদিও যুক্তরাষ্ট্র সরকার আশা করছে, ডিসেম্বরের প্রথমার্ধেই টিকার অনুমোদন পাওয়া যাবে।

মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার এবং তাদের পার্টনার জার্মান ওষুধ কোম্পানি বায়োএনটেক বুধবার (১৮ নভেম্বর) তাদের কোভিড-১৯ টিকা মানবদেহে অ্যান্টিবডি তৈরিতে ৯৫ শতাংশ কার্যকর বলে ঘোষণা দেয়। আর ৬৫ বছরের বেশি বয়সের মানুষদের বেলায় তা ৯৪ শতাংশের বেশি কার্যকর। এই বয়সের মানুষদেরই কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর ঝুঁকি সব থেকে বেশি।

যুক্তরাষ্ট্রে কোভিড-১৯ সংক্রমণ এবং মৃত্যু উভয়ই আবার উদ্বেগজনক হারে বাড়তে শুরু করেছে। গত জুনের পর দেশটিতে গত বৃহস্পতিবার আবার দৈনিক মৃত্যু দুই হাজার ছাড়িয়ে যায়। এ অবস্থায় ফাইজারের টিকা দেশটির জন্য আশার আলো হয়ে আসবে। যদি এফডিএ ডিসেম্বরের মাসের প্রথমার্ধে টিকার অনুমোদন দিয়ে দেয় তবে ‘অনুমোদন পাওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তারা টিকা বিতরণ করতে প্রস্তুত আছে’ বলে জানায় ফাইজার ও বায়োএনটেক।

সিইও বোরলা বৃহস্পতিবার বলেন বিশ্বের হাতে কোভিড-১৯ এর একটি টিকা তুলে দিতে আমরা যে যাত্রা শুরু করেছিলাম, টিকার জরুরি ব্যবহারের আবেদন সেই যাত্রা পথে একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক। আর অনুমোদনের পর প্রথম দিকে কারা টিকা পাবেন সেটা নির্ধারণ করবে ‘দ্য সেন্টারস ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসিপি)।

ফাইজারের টিকার শেষ ধাপের পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন বিশ্বের কয়েকটি দেশে ৪৩ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবী। তাদের কারো কারো শরীরে মৃদু থেকে মাঝারি উপসর্গ দেখা গিয়েছিল এবং সেগুলো দ্রুত সেরেও যায়।ফাইজারের ঘোষণা আসার মাত্র দুইদিন আগে আরেক মার্কিন ওষুধ কোম্পানি মডার্না বুধবার তাদের কোভিড-১৯ এর টিকা ৯৪ দশমিক ৫ শতাংশ কার্যকর বলে জানিয়েছিল। সোমবার (১৬ নভেম্বর) মডার্না তাদের শেষ ধাপের পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলের প্রাথমিক তথ্য প্রকাশ করে।

এর বাইরে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনকার কোভিড-১৯ এর টিকারও শেষ ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। যেটির প্রয়োগে মানবদেহের টি-সেল খুব ভালোভাবে সাড়া দিচ্ছে বলে দাবি কর্মকর্তাদের। যা মানবদেহে দীর্ঘমেয়াদে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং অ্যান্টিবডি তৈরির ইঙ্গিত দেয়। এছাড়া চীন ও রাশিয়ার দুইটি কোম্পানিও কোভিড-১৯ এর টিকা আবিষ্কারের দৌড়ে রয়েছে। তাদের টিকারও শেষ ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে।

চীনের উহান শহর থেকে গত বছর ডিসেম্বরে সারা বিশ্বে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস এখন পর্যন্ত ১৩ লাখের বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে, আক্রান্ত সাড়ে পাঁচ কোটির বেশি। থমকে গেছে বিশ্ব অর্থনীতি, মানুষের দৈনন্দিন জীবনে নেমে এসেছে অস্বাভাবিকতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here