ট্রাম্পের কোভিড-১৯ উপসর্গ বিপদজনক।

0
ট্রাম্পের কোভিড-১৯ উপসর্গ বিপদজনক।

প্রেসনিউজ২৪ডটকমঃ নিউজ ডেস্ক: শনিবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে চিকিৎসকরা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ‘ভালো আছেন’ বলে যে তথ্য দিয়েছেন, তার সঙ্গে এই ব্যক্তির দেওয়া তথ্যে বিস্তর ফারাক রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে একজন চিকিৎসক বলেছিলেন, ট্রাম্প তাদের বলেছেন যে আজকেই এখান থেকে বেরিয়ে যেতে পারব বলে আমার মনে হচ্ছে।

তবে নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে ওই ব্যক্তি বলেছেন, ট্রাম্পের জন্য আগামী ৪৮ ঘণ্টা খুবই ক্রিটিকাল। কোভিড-১৯ সংক্রমণ ধরা পড়ার কয়েক ঘণ্টা পর শুক্রবার বিকালে হোয়াইট হাউস থেকে ওয়াল্টার রিড ন্যালশনাল মেডিকেল সেন্টারে গিয়ে ভর্তি হন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসের চিকিৎসক শন কনলি শনিবার হাসপাতালের বাইরে সাংবাদিকদের বলেন, ট্রাম্পের শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়নি এবং তাকে অক্সিজেন দেওয়া লাগছে না।

প্রেসিডেন্টের শারীরিক অবস্থার যে অগ্রগতি হয়েছে তাতে মেডিকেল টিম ও আমি খুবই খুশি। তবে ট্রাম্প কবে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেতে পারেন, সে সম্পর্কে কিছু বলেননি কনলি। করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে বয়স্কদের ঝুঁকিই সবচেয়ে বেশি। ৭৪ বছর বয়সী ট্রাম্প সেই বয়স শ্রেণিতেই পড়েছেন।

হোয়াইট হাউস বলেছে, পূর্ব সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প (৭৪) আগামী কয়েক দিন হাসপাতালের একটি স্পেশাল স্যুট থেকে কাজ চালিয়ে যাবেন। শনিবার তার কোনো কর্মসূচি নেই। আগামী ৩ নভেম্বর ভোট সামনে রেখে গত কয়েক সপ্তাহে নিয়মিতভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনী সফর করে আসছিলেন ট্রাম্প। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের সতর্কবার্তা উপেক্ষা করেই তিনি হাজারো মানুষের ভিড়ের মধ্যে রিপাবলিকান পার্টির বিভিন্ন নির্বাচনী সমাবেশে যোগ দিচ্ছিলেন।

করোনাভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রে দুই লাখের বেশি মানুষের মৃত্যু এবং দেশটির অর্থনীতি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এই মহামারীকে ট্রাম্প ততোটা গুরুত্ব দেননি। সংক্রমণ এড়াতে চিকিৎসকরা যেখানে মাস্ক ব্যবহারে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে আসছেন, সেখানে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজে মাস্ক পরতে অনাগ্রহ দেখিয়ে এসেছেন, এমনকি যারা মাস্ক পরছেন, তাদেরও সমালোচনা করতে ছাড়েননি।

শন কনলি জানিয়েছেন, ট্রাম্পকে ইতোমধ্যে রেমডেসিভিরের পাঁচ দিনের কোর্সের একটি ডোজ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া তাকে রেজেনেরন ফর্মাসিটিক্যালের পরিক্লোনল অ্যান্ডিবডি ককটেল (REGN-Cov2) দেওয়া হয়েছে। ওই ওষুধটি শরীরে ভাইরাসের বিস্তার হ্রাস করে দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠতে সহায়তা করে।

পাশাপাশি জিংক, ভিটামিন ডি, ফ্যামোটিডিন, মেলাটোনিন ও অ্যাসপিরিন দেওয়া হচ্ছে ট্রাম্পকে। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে এক টুইটে তিনি নিজে এবং ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের (৫০) করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ার কথা জানান ডনাল্ড ট্রাম্প। বয়স ও ওজনের কারণে এই ভাইরাস সংক্রমণে ঝুঁকিতে রয়েছেন তিনি। প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালনকালে এতদিন সুস্থই দেখা গেছে তাকে। তবে তিনি নিয়মিত ব্যায়াম করেন কি না বা খাদ্যাভ্যাস স্বাস্থ্যকর কি না তা জানা যায়নি।

হাসপাতালের বাইরে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্পের শারীরিক অবস্থা নিয়ে কথা বলেন তার চিকিৎসক শন কনলি। ছবি- রয়টার্স শুক্রবার ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টির আরও বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তাদের মধ্যে হোয়াইট হাউসের সাবেক সিনিয়র অ্যাডভাইজার কেলিয়ানে কনওয়ে এবং রিপাবলিকান সেনেটর মাইক লি ও টম টিলিস রয়েছেন।

 

শনিবার আরও একজন সেনেটরের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে: রিপাবলিকান রন জনসন, যিনি সেনেট হোমল্যান্ড সিকিউরিটি কমিটির চেয়ারম্যান। নিউ জার্সির সাবেক গভর্নর ক্রিস ক্রিস্টিও কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ার কথা জানিয়েছেন। ট্রাম্প গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রেসিডেন্টের দায়িত্বভার সামলাতে হবে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে, তার করোনাভাইরাস পরীক্ষায় ‘নেগেটিভ’ এসেছে বলে একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন। ৬১ বছর বয়সী ইন্ডিয়ানার এই সাবেক গভর্নর হোয়াইট হাউস থেকে প্রায় তিন মাইল দূরে তার বাসা থেকে কাজ করছেন।

গত এপ্রিলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন শনিবার সাংবাদিকদের বলেছেন, ট্রাম্প ভালোভাবেই কোভিড-১৯ থেকে সেরে উঠবেন সে বিষয়ে তার কোনো সন্দেহ নেই। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং শনিবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তার স্ত্রীকে পাঠানো বার্তায়  তাদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here